Hypertension at young age তরুণ বয়সে উচ্চ রক্তচাপ?

blog-pic-438

সারা বিশ্বে উচ্চ  রক্তচাপ একটি বিরাট সমস্যা। পূর্বে ধারণা করা হতো উচ্চ রক্তচাপ কেবল বয়স্কদের রোগ। কিন্তু বর্তমানে তরুণ বয়সীদের মধ্যে আশংকাজনক ভাবে উচ্চ রক্তচাপের লক্ষণ পরিলক্ষিত হচ্ছে। বিশ্বায়নের সাথে সাথে যেমন চিকিৎসা শাস্ত্রে উন্নতি হচ্ছে, মানুষের গড় আয়ু বাড়ছে, ঠিক তেমনি আমাদের দৈনন্দিন জীবনধারা ও খাদ্যাভ্যাসে পরিবর্তন আসছে। তরুণ বয়সে উচ্চ রক্তচাপ হওয়ার পিছনে ত্রুটিময় জীবনধারা ও খাদ্যাভ্যাস অনেকটাই দায়ী। আসুন জেনে নেয়া যাক রক্তচাপ ,উচ্চ রক্তচাপ কি এবং কেন অল্প বয়সীদের মধ্যে এটি পরিলক্ষিত হচ্ছে।

রক্তচাপ: রক্তনালীর মধ্য দিয়ে রক্ত প্রবাহিত হওয়ার সময় রক্ত নালী’র দেয়ালে চাপ দিয়ে প্রবাহিত হয়। রক্তনালীর উপর রক্তের এই চাপকে রক্তচাপ বলে। মানুষের শরীরের স্বাভাবিক রক্তচাপ সাধারণত ১২০/৮০ মিমি।

উচ্চ রক্তচাপ: রক্ত প্রবাহিত হওয়ার সময় যদি রক্তনালীর উপর অধিক চাপ প্রয়োগ করে তাহলে তাকে উচ্চ-রক্তচাপ বলে।উচ্চ রক্তচাপে রক্তচাপ, ১২০/৮০ এর অধিক হয়ে থাকে।

উচ্চ রক্তচাপের কারণ:
১. বংশগত
২. স্থূলতা
৩. ধূমপান
৪. শারীরিক চর্চার প্রতি অনীহা ও দুশ্চিন্তা
৫. ডায়াবেটিস
৬. মদ্যপান
৭. চর্বি জাতীয় খাদ্য অধিক হারে গ্রহণ
৮. কিডনি রোগ থাকা ও অন্যান্য

উচ্চ-রক্তচাপ সনাক্তকরণ:
লক্ষণ:
১. উচ্চ রক্তচাপ
২. বমি বমি লাগা
৩. মাথা ও ঘাড়ের দিকে ব্যথা
৪. ঘাম হওয়া
৫. অস্থিরতা ও বুক ধড়ফড় করা ইত্যাদি

উচ্চ রক্তচাপে করণীয়:
১. উচ্চ রক্তচাপের লক্ষণ যার মধ্যে দেখা যাবে, তৎক্ষণাৎ তার রক্তচাপ পরিমাপ করতে হবে।
২. শারীরিক চর্চার পর বা অতিরিক্ত দুশ্চিন্তায় সাময়িকভাবে রক্তচাপ বাড়লে বিশ্রাম গ্রহণ করলে রক্তচাপ স্বাভাবিক হয়ে যায়।
৩. যারা উচ্চ রক্তচাপের রোগী তাদের ক্ষেত্রে দেখতে হবে উচ্চ রক্তচাপের ঔষধ গ্রহণ করেছে কিনা ।ঔষধ গ্রহণ না করে থাকলে, ঔষধ গ্রহণ নিশ্চিত করতে হবে। নিয়মিত সঠিক নিয়মে উচ্চ রক্তচাপের ঔষধ সেবনের দিকে লক্ষ্য রাখতে হবে।
৪. ঔষধ গ্রহণের পরও যদি রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে না আসে, নিকটস্থ হাসপাতালে নিয়ে যেতে হবে ।

উচ্চ-রক্তচাপ প্রতিরোধে করণীয়:
১. নিয়মিত শারীরিক চর্চা করতে হবে। আধা ঘণ্টা  থেকে ১ ঘণ্টা হাঁটাহাঁটি করা, সাইক্লিং করা,সাঁতার কাটা, দড়ি লাফ দেয়া ইত্যাদি রক্তের স্বাভাবিক চাপ বজায় রাখতে সহায়তা করে।
২. পরিমিত পরিমাণে সুষম খাদ্য গ্রহণ ও চর্বী জাতীয় খাদ্য পরিহার।
৩. পাতে লবণ নিয়ে খাওয়ার অভ্যাস ত্যাগ করতে হবে।
৪. বয়স ও উচ্চতার সাথে সামজ্ঞস্যপূর্ণ ওজন বজায় রাখা।
৫. দুশ্চিন্তা পরিহার করা।
৬. ধূমপান ও মদ্যপান পরিহার করা।

Doctorola TV (Online Health Channel)

ডক্টোরোলা ডট কম (www.doctorola.com) প্রচারিত সকল তথ্য সমসাময়িক বিজ্ঞানসম্মত উৎস থেকে সংগৃহিত এবং এসকল তথ্য কোন অবস্থাতেই সরাসরি রোগ নির্ণয় বা চিকিৎসা দেয়ার উদ্দেশ্যে প্রকাশিত নয়। জনগণের স্বাস্থ্য সচেতনতা সৃষ্টি ডক্টোরোলা ডট কমের (www.doctorola.com) লক্ষ্য।

দেশজুড়ে অভিজ্ঞ ডাক্তারদের খোঁজ পেতে ও অ্যাপয়েন্টমেন্ট নিতে ভিজিট করুন www.doctorola.com অথবা কল করুন 16484

Comments are closed.