এইডস রোগীদের মুখ ও দাঁতের সমস্যা Oral problems of aids patients

blog-pic-400

সাধারণত হিউম্যান ইমিউনো ডেফিসেন্সি ভাইরাস (এইচ.আই.ভি) দিয়ে এইডস রোগ হয়ে থাকে। এইডস রোগীদের অন্যান্য শারীরিক সমস্যার পাশাপাশি মুখ ও দাঁতের রোগ হওয়ার প্রবণতা অনেক বেশি থাকে। কেননা তাদের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা অন্য সাধারণ মানুষের চেয়ে অনেক কম থাকে। অনেক সময় এইডস রোগের প্রাথমিক লক্ষণগুলো মুখ ও দাঁতের রোগের মাধ্যমে ও প্রকাশ পেতে পারে। (অনুমতি ব্যাতিত ডক্টরোলার ব্লগের লেখা কোন অনলাইন বা অফলাইন মিডিয়াতে ব্যবহার করা যাবে না)

কীভাবে এই ভাইরাস ছড়ায়?
রক্ত (ব্লাড ট্রাস্ফিউশন, এইচ আই ভি ভাইরাস ইনফেক্টেড সূচ দিয়ে, কোন ভাবে এইডস রোগীর রক্তের সংস্পর্শে এলে)। যৌন সংস্পর্শে গর্ভবতী মা থেকে তার বাচ্চায় যেতে পারে। ব্রেস্ট ফিডিং এর সময় মা থেকে বাচ্চায় যেতে পারে।

এইডস রোগীদের মুখ ও দাঁতের সমস্যা:
১. ড্রাই মাউথ: মুখের লালা/Salivation সাধারণত যতটা থাকার কথা, তার চেয়ে কমে গিয়ে ড্রাই মাইথ হতে পারে। এই ড্রাই মাউথ থেকে দন্ত ক্ষয় রোগ যেমন হতে পারে, তেমনি রোগীর স্বাভাবিক খাওয়া, চর্বন ও গলাধঃকরণে ও বিঘ্ন ঘটাতে পারে।
২. জিঞ্জিভাইটিস/মাড়ির প্রদাহ
৩. পেরিওডোন্টাইটিস
৪. ফিভার ব্লিস্টারস
৫. ভাইরাল ইনফেকশন
৬. ওরাল ওয়ার্টস
৭. এপথাস আলসার
৮. লিউকোপ্লাকিয়া
৯. ছত্রাক ইনফেকশন/ক্যান্ডিডিয়াসিস

ডেন্টাল ট্রিটমেন্ট এর সময় যেভাবে HIV ছড়াতে পারে:
ডেন্টাল ট্রিটমেন্ট, বিশেষত ইনভেসিভ চিকিৎসাগুলোর (স্কেলিং, দাঁত তোলা, রুট ক্যানেল, নিডল প্রিক, মেজর ওরাল সার্জারি) মাধ্যমে এই ভাইরাস রোগী থেকে ডাক্তার, রোগী থেকে রোগী কিংবা ডাক্তার থেকে রোগীতে ছড়াতে পারে।

ডেন্টাল ট্রিটমেন্ট এর সময় সতর্কতা:
এইডস একটি ইনফেকশিয়াস (ছোঁয়াচে রোগ)। শুধু HIV না, যে কোনো ইনফেকশন যাতে ডেন্টাল ট্রিটমেন্ট এর সময় না ছড়ায়, সেজন্য ডেন্টাল সার্জন, তার এসিস্ট্যান্ট এবং রোগী সবার ক্ষেত্রেই চিকিৎসা চলাকালীন সময়ে সতর্কতা মেনে চলা উচিত।
আর সেজন্য –
১. রোগীর যথাযথ রোগের হিস্টোরি দিতে হয়।
২. ডেন্টাল ক্লিনিকে ব্যবহৃত যন্ত্রপাতি যেগুলো Re-Useable সেগুলো ভালোভাবে স্টেরিলাইজ করে নিতে হয়।
৩. ডিসপোসেবল যন্ত্রপাতি গুলো টাইট ডিসপসাল বাস্কেটে ফেলে দিতে হয়।
৬. এইডস রোগী যদি ডেন্টাল চেম্বারে আসে, তাহলে বাড়তি সতর্কতা মেনে চলতে হয়। এইডস রোগীর চিকিৎসায় ব্যবহৃত যন্ত্রপাতি ভালোভাবে স্টেরিলাইজ করে নেয়ার প্রয়োজন পরে ও এ ধরনের রোগীর চিকিৎসায় ব্যবহৃত ডিস্পোসেবল জিনিস গুলো টাইট কন্টেইনারে ডিসকার্ড করে দিতে হয়।

– ইউটিউবে স্বাস্থ্য টিপস পেতে ক্লিক করুন “Doctorola TV” (Online Health Channel) –

ডক্টোরোলা ডট কম (www.doctorola.com) প্রচারিত সকল তথ্য সমসাময়িক বিজ্ঞানসম্মত উৎস থেকে সংগৃহিত এবং এসকল তথ্য কোন অবস্থাতেই সরাসরি রোগ নির্ণয় বা চিকিৎসা দেয়ার উদ্দেশ্যে প্রকাশিত নয়। জনগণের স্বাস্থ্য সচেতনতা সৃষ্টি ডক্টোরোলা ডট কমের (www.doctorola.com) লক্ষ্য। অনুমতি ব্যাতিত ডক্টরোলার ব্লগের লেখা কোন অনলাইন বা অফলাইন মিডিয়াতে ব্যবহার করা যাবে না। লেখা সংক্রান্ত কোন মতামত থাকলে অনুগ্রহ করে ব্লগের নিচে “Leave a Reply” সেকশনে বিস্তারিত লিখুন।

দেশজুড়ে অভিজ্ঞ ডাক্তারদের খোঁজ পেতে ও অ্যাপয়েন্টমেন্ট নিতে ভিজিট করুন www.doctorola.com অথবা কল করুন 16484 নম্বরে।

Comments are closed.