Type 2 Diabetes টাইপ ২ ডায়াবেটিস

blog-pic-382

হ্যাঁ, গবেষণায় জানা গিয়েছে টাইপ ২ ডায়াবেটিস এর ঝুঁকিতে যারা আছেন তারা যদি কিছু নিয়ম মেনে চলেন, তবে ডায়াবেটিস প্রতিরোধ করা সময়।

তার আগে আসুন জেনে নিই ডায়াবেটিস কি এবং টাইপ ১ ও ২ ডায়াবেটিস বলতে কি বুঝায়:
ডায়াবেটিস হল ইনসুলিনের অভাবজনিত একটি রোগ। ইনসুলিন একটি হরমোন, যা মানবদেহের অগ্ন্যাশয় থেকে নিঃসৃত হয় এবং এটি রক্তের গ্লুকোজকে নিয়ন্ত্রণে রাখতে সাহায্য করে। ইনসুলিনের অভাবে রক্তের গ্লুকোজের মাত্রা স্বাভাবিকের চেয়ে বেশি হয়ে যায় এবং এই অবস্থাকে ডায়াবেটিস বলে।

ডায়াবেটিস টাইপ ১ বলতে বোঝায় যখন শরীরের ইনসুলিন কোন কারণে একদমই তৈরি হয় না এবং এর চিকিৎসা শুধুমাত্র ইনসুলিন দিয়ে করতে হয়। টাইপ ২ ডায়াবেটিস বলতে বোঝায়, শরীরের ইনসুলিন তৈরি কোন কারণে কমে যাওয়া অথবা ইনসুলিন হরমোন তৈরি হলেও তার কার্যকারিতা কোন কারণে কমে যাওয়া। এর চিকিৎসা ইনসুলিন ছাড়াও খাদ্যাভ্যাস, শারীরিক পরিশ্রম অথবা মুখে খাওয়া ওষুধের মাধ্যমে করা সম্ভব।

(অনুমতি ব্যাতিত ডক্টরোলার ব্লগের লেখা কোন অনলাইন বা অফলাইন মিডিয়াতে ব্যবহার করা যাবে না)

টাইপ ২ ডায়াবেটিস এর ঝুঁকিতে আছেন কারা?
– যাদের উচ্চতা অনুযায়ী ওজন বেশি। বিশেষ করে যাদের পেটে মেদ বেশি, তারা টাইপ ২ ডায়াবেটিস এর ঝুঁকিতে বেশি রয়েছেন।
– যারা কম শারীরিক পরিশ্রম করেন।
– যাদের ধূমপানের অভ্যাস রয়েছে।
– যাদের বংশে নিকটাত্মীয়ের ডায়াবেটিস রয়েছে।
– যাদের গর্ভাবস্থায় ডায়াবেটিস এর ইতিহাস আছে।

কোন পরীক্ষার মাধ্যমে কি নিশ্চিত আগে থেকেই বলা সম্ভব আপনার ডায়াবেটিস এর ঝুঁকি আছে কি?
রক্তের গ্লুকোজের পরিমাণ পরিমাপের মাধ্যমে একজন ব্যক্তির ডায়াবেটিস এর ঝুঁকি আছে কিনা সেটি নির্ণয় করা সম্ভব। আপনার গ্লুকোজের পরিমাণ যদি নিম্নে উল্লিখিত পরিমাণ এর মধ্যে থাকে, তবে আপনি প্রি-ডায়াবেটিক বলে বিবেচিত হবেন এবং আপনার ডায়াবেটিস হবার সম্ভাবনা অত্যন্ত বেশি।

খালি পেটে গ্লুকোজের মাত্রা: যদি ৮-১০ ঘণ্টা খালি পেটে থাকার পর আপনার গ্লুকোজের মাত্রা ৬.১- ৬.৯ মিলি-মোল/ লিটার এর মাঝে থাকে।
৭৫ গ্রাম গ্লুকোজ খাবার ২ ঘণ্টা পর ৭.৮- ১১.০ মিলি-মোল/ লিটার এর থাকে।

ফোনেই ডাক্তারের সাথে কথা বলতে এখানে ক্লিক করুন

হিমোগ্লোবিন এ ওয়ান সিঃ আপনার গত তিন মাসের রক্তের গ্লুকোজের পরিমাণ জানা যায় এই টেস্টের মাধ্যমে এবং প্রি ডায়াবেটিস অবস্থায় এটি ৫.৭ থেকে ৬.৪ থাকে।

সুতরাং আপনার উপরে বর্ণিত বৈশিষ্ট্য এবং রক্ত পরীক্ষার মাধ্যমে আগে থেকেই ডায়াবেটিস এর ঝুঁকি নির্ণয় করে ব্যবস্থা নেয়া সম্ভব।

যেভাবে আপনি নিজেকে প্রতিরোধ করবেন টাইপ টু ডায়াবেটিস থেকে:

ওজন নিয়ন্ত্রনঃ ওজন নিয়ন্ত্রণ করার মাধ্যমে আপনি ডায়াবেটিস এর ঝুঁকি অনেকাংশে কমিয়ে ফেলতে পারেন। উচ্চতা অনুযায়ী নিয়ন্ত্রিত ওজন আপনাকে ডায়াবেটিস এবং হৃদরোগের ঝুঁকি থেকে মুক্ত রাখবে।

নিয়মিত শারীরিক পরিশ্রম: নিয়মিত শারীরিক পরিশ্রম ডায়াবেটিস প্রতিরোধের অন্যতম হাতিয়ার। প্রতিদিন অন্তত ৩০-৪০ মিনিট মাঝারি থেকে দ্রুত গতির হাঁটার মাধ্যমে আপনি ডায়াবেটিস এর ঝুঁকি থেকে মুক্ত থাকতে পারেন।
পরিমিত ও স্বাস্থ্যকর খাদ্যাভাসঃ অতিরিক্ত শর্করা জাতীয় খাদ্য যেমন ভাত,আলু এবং তেল চর্বি জাতীয় খাদ্য পরিহার এবং পুষ্টিকর খাদ্য যেমন শাকসবজি, ফলমূল খাবার মাধ্যমে আপনি একদিকে যেমন আপনার ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখতে পারেন,একই সাথে ডায়াবেটিস এর মত রোগ থেকেও নিজেকে ঝুঁকি মুক্ত রাখতে পারেন।

ধূমপান বর্জন: ধূমপান বর্জন আপনার ডায়াবেটিস এর ঝুঁকি কমায়।

যেহেতু ডায়াবেটিস একটি দীর্ঘমেয়াদী অসুখ। একবার ডায়াবেটিস হয়ে গেলে এটিকে নির্মূল করা সম্ভব নয়,শুধুমাত্র নিয়ন্ত্রণেই রাখা সম্ভব। তাই ডায়াবেটিস হবার আগেই প্রয়োজনীয় সতর্কতামূলক ব্যবস্থা গ্রহণের মাধ্যমে ডায়াবেটিসকে প্রতিরোধ করারই বুদ্ধিমানের কাজ।

ডক্টোরোলা ডট কম (www.doctorola.com) প্রচারিত সকল তথ্য সমসাময়িক বিজ্ঞানসম্মত উৎস থেকে সংগৃহিত এবং এসকল তথ্য কোন অবস্থাতেই সরাসরি রোগ নির্ণয় বা চিকিৎসা দেয়ার উদ্দেশ্যে প্রকাশিত নয়। জনগণের স্বাস্থ্য সচেতনা সৃষ্টি ডক্টোরোলা ডট কমের (www.doctorola.com) লক্ষ্য। (অনুমতি ব্যাতিত ডক্টরোলার ব্লগের লেখা কোন অনলাইন বা অফলাইন মিডিয়াতে ব্যবহার করা যাবে না)

দেশজুড়ে অভিজ্ঞ ডাক্তারদের খোঁজ পেতে ও অ্যাপয়েন্টমেন্ট নিতে ভিজিট করুন www.doctorola.com অথবা কল করুন 16484 নম্বরে।

—————-
From Wikipedia:
Diabetes mellitus type 2 (also known as type 2 diabetes) is a long-term metabolic disorder that is characterized by high blood sugar, insulin resistance, and relative lack of insulin. Common symptoms include increased thirst, frequent urination, and unexplained weight loss. Symptoms may also include increased hunger, feeling tired, and sores that do not heal. Often symptoms come on slowly. Long-term complications from high blood sugar include heart disease, strokes, diabetic retinopathy which can result in blindness, kidney failure, and poor blood flow in the limbs which may lead to amputations. The sudden onset of hyperosmolar hyperglycemic state may occur; however, ketoacidosis is uncommon.

Comments are closed.