প্রোস্টেট গ্রন্থির বৃদ্ধি

blog-pic-257

প্রোস্টেট কী ও কেন?
প্রোস্টেট একটি গ্রন্থি। দেখতে অনেকটা জামরুল ফলের মতো। মূত্রথলির নিচের দিকে যেখান থেকে মূত্রনালী শুরু হয় সেখানে মূত্রনালীর শুরুর অংশটি ঘিরে এই গ্রন্থিটি অবস্থান করে। এই গ্রন্থি থেকে যৌনক্রিয়ার পূর্বে এক ধরনের রস নিঃসৃত হয়, যাকে বলা হয় প্রোস্টেটিক সিক্রেশান। যোনিপথে শুক্রাণুকে অটুট রাখতে প্রোস্টেট গ্রন্থির রস সাহায্য করে থাকে। যৌবনপ্রাপ্তির পরেই এ গ্রন্থিটি তার কাজ শুরু করে। পুরুষদের বয়স ৫০-এর কোঠা পেরিয়ে গেলেই দেখা যায় প্রোস্টেট গ্রন্থিটি ক্রমশ বড় হয়ে যায়। প্রোস্টেট গ্রন্থির এই বেড়ে যাওয়া ব্যাপারটিকে চিকিৎসাবিজ্ঞানের ভাষায় বিনাইন এনলার্জমেন্ট অফ প্রোস্টেট বলা হয়।

প্রোস্টেট গ্রন্থি বড় হয়ে যাবার কারণে কী কী সমস্যা দেখা দেয়?
– প্রোস্টেট গ্রন্থি বড় হলে প্রথমদিকে মধ্যরাতে বারবার প্রস্রাব চাপবে। এ সমস্যা ধীরে ধীরে দিনে ও রাতে দুবেলাতেই দেখা যাবে।
– রোগীর প্রচণ্ড প্রস্রাব চাপবে কিন্তু প্রস্রাব করতে গেলে সঙ্গে সঙ্গে প্রস্রাব শুরু না হয়ে একটু পর শুরু হবে এবং সামান্য পরিমাণ প্রস্রাব হবে। মূত্রথলিতে আরও প্রস্রাব রয়ে গেছে বলে মনে হবে।
– প্রস্রাব করতে কষ্ট হবে। প্রস্রাবের ধারার বেগ কমে আসবে এবং প্রস্রাবের শেষে ফোঁটা ফোঁটা করে প্রস্রাব পড়বে।
– দীর্ঘক্ষণ মূত্রথলিতে প্রস্রাব জমে থাকার কারণে মূত্রথলিতে ইনফেকশান অর্থাৎ সিস্টাইটিস হতে পারে। ফলে প্রস্রাবের সময় জ্বালাপোড়া, ঘন ঘন প্রস্রাব হওয়া এসব সমস্যা দেখা দেয়।
– মূত্রথলিতে প্রস্রাব আটকে থাকায় প্রস্রাবের অতিরিক্ত চাপ উল্টোদিকে প্রবাহিত হয়ে কিডনির ক্ষতি করতে পারে। এক্ষেত্রে কোমরের দিকে ব্যথা হয়।

প্রয়োজনীয় ল্যাবরেটরি টেস্ট :
১. আল্ট্রাসনোগ্রাফি : এতে করে প্রোস্টেটের বৃদ্ধি, মূত্রথলির পাথর ও কিডনির অবস্থা জানা যাবে।
২. প্রস্রাবের রুটিন ও কালচার সেনসিটিভিটি টেস্ট : এতে করে মূত্রথলিতে কোনো ইনফেকশন হলে তার  জন্যে দায়ী জীবাণুকে জানা যায়।
৩. ইন্ট্রাভেনাস ইউরোগ্রাফি : এই টেস্টে মূত্রনালী ও মূত্রথলির সংকোচনজনিত ত্রুটি জানা যাবে।
৪. রক্তের বিভিন্ন রুটিন পরীক্ষা।

চিকিৎসা কী?
ওষুধের মাধ্যমে চিকিৎসা করা যায়। তবে বারবার প্রস্রাব আটকে গেলে সেক্ষেত্রে অপারেশানই হচ্ছে একমাত্র চিকিৎসা। অপারেশানে দেরি করলে নানারকম জটিলতা দেখা দিতে পারে। অপারেশানের বেশ কয়েকটি পদ্ধতি আছে। এখন পেট না কেটেও প্রোস্টেট গ্রন্থির অপারেশান করা যায়। একে সংক্ষেপে TURP বলা হয়।

প্রোস্টেট বড় হয়ে যাওয়া নিয়ে ভুল ব্যাখ্যা :
প্রোস্টেট গ্রন্থি বড় হবার ব্যাপারটিকে অনেকে বাজেভাবে ব্যাখ্যা করে থাকেন। এটিকে অবৈধ ও অতিরিক্ত যৌনাচারের ফল বলে মনে করেন। প্রকৃতপক্ষে এসবের সঙ্গে প্রোস্টেট গ্রন্থি বৃদ্ধির সম্পর্ক নেই। বয়স বাড়ার সাথে শারীরিক ক্ষয়িষ্ণুতার ফলেই এটি হয়ে থাকে। পড়ন্ত বয়সে যেকোনো ব্যক্তি এ সমস্যায় আক্রান্ত হতে পারেন।

ফোনেই ডাক্তারের সাথে কথা বলতে এখানে ক্লিক করুন

ডক্টোরোলা ডট কম (www.doctorola.com) প্রচারিত সকল তথ্য সমসাময়িক বিজ্ঞানসম্মত উৎস থেকে সংগৃহিত এবং এসকল তথ্য কোন অবস্থাতেই সরাসরি রোগ নির্ণয় বা চিকিৎসা দেয়ার উদ্দেশ্যে প্রকাশিত নয়। জনগণের স্বাস্থ্য সচেতনা সৃষ্টি ডক্টোরোলা ডট কমের (www.doctorola.com) লক্ষ্য।

দেশজুড়ে অভিজ্ঞ ডাক্তারদের খোঁজ পেতে ও অ্যাপয়েন্টমেন্ট নিতে ভিজিট করুন www.doctorola.com অথবা কল করুন 16484 নম্বরে।

6 Comments

  1. shafiur says:

    আমার অন্ডকোষ ব্যাথা হয় এবং ঘন ঘন প্রসাব হয়। প্রসাবে বেগ কম এবং মোচর পারে এই অবস্থায় কি করনিও আমার বয়স ৩২ বছর।

  2. Abu bakar siddik says:

    Hormone kome gele ki korte hobe and ki ki khabar khete hobe ? pls inform me

  3. Mizan says:

    আমার মা এর এই সমস্যা কোন ডাঃ দেখাব