চোখে ছানি পড়া

Blog pic-79

ছানি পড়া কি?
চোখের ভেতরে স্বচ্ছ কাঁচের মত যে অংশটি থাকে তাকে লেন্স বলে।যদি কোন কারণে এই লেন্সটি অস্বচ্ছ বা ঘোলা হয়ে দৃষ্টিশক্তিতে প্রতিবন্ধকতা তৈরি করে তাহলে তাকে চোখের ছানি পড়া বা Cataract বলে। সারা বিশ্বেই এটি একটি প্রচলিত সমস্যা।

ছানি পড়ার কারণঃ
১ . বয়স বাড়ার সাথে সাথে চোখের লেন্সের প্রোটিন অংশটি পুরু হয়ে লেন্সের একটি ক্ষুদ্র অংশ আবৃত করে ফেলে এবং সময়ের সাথে তা বাড়তে থাকে। এটি বার্ধক্যজনিত ছানি।
২ . চোখ ছাড়া অন্যকোন অসুখ যেমন: ডায়াবেটিস, উচ্চরক্তচাপ ইত্যাদি ।
৩ . চোখের বিভিন্ন জটিল রোগ যেমন: হাই মায়োপিয়া ,বংশগত অপুষ্টি ইত্যাদি।
৪ . কোন কারণে চোখে আঘাত লাগলে সেই চোখে ছানি পড়ার সম্ভাবনা থাকে।

ছানি পড়ার লক্ষণসমূহঃ
১ . দৃষ্টিশক্তি ধীরে ধীরে অস্বছ হয়ে আসা,
২ . আলোতে গেলে দৃষ্টিশক্তি কমে যাওয়া,
৩ . ছানি বেশি পুরু হয়ে যাওয়ার কারণে চোখে আর কিছুই দেখতে না পাওয়া,
৪ . ব্যাথাহীনতা এবং অন্য কোন উপসর্গ না থাকা,

প্রকারভেদঃ
১ .  বয়োবৃদ্ধি জনিত ছানি
২ .  জন্মগত ছানি
৩ . অন্যকোন অসুখজনিত ছানি
৪ . চোখে আঘাতজনিত কারণে ছানি

চিকিৎসাঃ
সাধারণত অস্ত্রোপচারের মাধ্যমে ছানি অপসারন করা হয়ে থাকে।ছানির অপসারনে মূলত তিন ধরণের পদ্ধতি অনুসরণ করা হয়ে থাকে। যেমন:

ফ্যাকোঃ এই পদ্ধতিতে কাঁটা ছেঁড়া করা ছাড়াই ফ্যাকো মেশিনের মাধ্যমে ছানি অপসারণ করে কৃত্রিম লেন্স সংযোজন করা হয়।তবে এটি তুলনামূলকভাবে ব্যয়বহুল।

প্রচলিত ছানি অপারেশনঃ এক্ষেত্রে সাধারণত দুই ধরণের অস্ত্রোপচার করা হয়।
ক. বিশেষ ব্যবস্থার মাধ্যমে চোখের খুব সামান্য অংশ কেটে ছানি অপসারণ করা যা SISC বা Small Incision Cataract Surgery হিসাবে পরিচিত।
খ. এক্ষেত্রে চোখের সাদা অংশ ও কর্ণিয়ার মধ্য দিয়ে কেটে প্রথমে ছানি অপসারণ করা হয়। তারপর কৃত্রিম লেন্স বসানো হয়। এই পদ্ধতিতে সেলাইয়ের প্রয়োজন হয়।

 দেশজুড়ে অভিজ্ঞ ডাক্তারদের খোঁজ পেতে ও অ্যাপয়েন্টমেন্ট নিতে ভিজিট করুন www.doctorola.com অথবা কল করুন 16484 নম্বরে।
 

Comments are closed.