Not Available Date for this Advertisement

প্রসব পরবর্তী মায়ের যত্ন

blog-pic-229

একজন গর্ভবতী মহিলার বাচ্চা গর্ভে থাকাকালীন যেমন তার যত্ন নিতে হয় সবার থেকে আলাদাভাবে , ঠিক তেমনি বাচ্চা হয়ে যাবার পর পূর্বের মত তার যত্ন নিতে হয়  যেন সে তার আগের  স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরে আসে।

প্রসবের পরবর্তী ৬-৮ সপ্তাহ একজন মায়ের জন্য খুব গুরুত্তপূর্ণ, এ সময় মায়ের পূর্ন খেয়াল রাখতে হয় যেন সে তার আগের  স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরে আসে। আমাদের দেশে অজ্ঞতার কারনে অধিকাংশই প্রসবের পরে মায়ের কোন যত্ন নেয় না। সাধারণত প্রত্যেক মায়ের এবং তাদের পরিচিতদের উচিত প্রসবের পর যেন মা ঠিকমত তার যত্ন নেয়, নাহলে অনেক ধরণের জটিলতা দেখা দিতে পারে মায়ের।

আসুন জেনে নেই একজন মায়ের প্রসবের পর সাধারণত কি কি নিয়ম-কানুন খেয়াল রাখা উচিতঃ
১) প্রসবের পরবর্তী  ১-২ সপ্তাহ নিয়মিত প্রতিদিন ৮-১০ ঘন্টা ঘুমানো উচিত। আর সেই সাথে স্বাভাবিক চলাফেরা সে করতে পারবে কিন্তু কোন ধরনের ভারী কাজ করতে পারবে না। দুপুরে খাবারের পর অন্তত ২ ঘন্টা ঘুমাবে। আর এই সময় সব ধরনের শারীরিক ও মানসিক পরিশ্রম থেকে তাকে দূরে থাকতে হবে। স্বাভাবিক চলাফেরার মাধ্যমে অনেক জটিলতা দূর হয় মায়ের। যেমনঃ মানসিকভাবে নিজেকে অনেক সুস্থ মনে হয়, জরায়ু থেকে রক্ত বের হতে সাহায্য করে ঠিকমত, রক্ত জমাট হয়ে যেসব রোগ হয় সেই সব রোগ থেকে ভাল রাখে।

২) প্রসবের পরে মায়ের খাবারের প্রতি বিশেষ যত্ন নিতে হবে। কারণ এই সময় মায়ের খাবারের চাহিদা বেড়ে যায়। গবেষনায় দেখা গিয়েছে এই সময় মায়ের খাবার স্বাভাবিক এর চেয়ে ৫০০ ক্যালরি বেড়ে যায়। আর এই অতিরিক্ত খাবার মায়ের জন্য যেমন দরকার তেমনি এটি তার শিশুর জন্য ও খুব উপকারী কারণ এই অতিরিক্ত খাবার বুকের দুধ  তৈরি করে। এই সময় মায়ের পানির পিপাসা বেড়ে যায়, ঘন ঘন পানি খায় সে এবং যা তার দেহের জন্য খুব দরকার। প্রস্রাবের রাস্তায় জালাপোড়া দেখা দেয় অনেক সময়, অতিরিক্ত পানি পানের ফলে এই জালা দূর হয়। তাছাড়া অতিরিক্ত পানি পানের মাধ্যমে কোষ্ঠকাঠিন্য দূর হয়।

৩) জন্মের পর পরই যত দ্রুত সম্ভব শিশুকে বুকের দুধ পান করানো উচিত। মায়ের বুকের এই দুধ বাচ্চার জন্য খুবই উপকারি। তাছাড়া বাচ্চাকে দুধ খাওয়ানোর ফলে এই সময় মায়ের শরীর থেকে অক্সিটোসিন নিঃসৃত হয়। অক্সিটোসিন মায়ের জরায়ু এবং রক্তনালি সংকুচিত করে মা’কে সুস্থ রাখতে সাহায্য করে। আর যার কারনে প্রসবের পর অতিরিক্ত রক্ত নিঃসৃত হয় না। তাছাড়া বুকের দুধ খাওয়ালে স্তন ক্যান্সার এবং জরায়ু ক্যান্সার হওয়ার সম্ভাবনা অনেক কমে যায়।

৪) যেসব মায়ের রক্তের গ্রুপ ‘নেগেটিভ’ কিন্তু শিশুর রক্তের গ্রুপ ‘’পজিটিভ’’ সেসব মায়ের প্রসবের পরপরই ৭২ ঘন্টার মাঝে এন্টি-ডি ইনজেকশন নিতে হবে।

৫) একটা বাচ্চা হওয়ার পর একজন মায়ের শরীরে রক্তের যে অভাব দেখা দেয় তা পূরণ হতে আরো ২ বছর সময় লাগে আর তাইসব মায়ের এই ব্যাপারে সচেতন থাকতে হবে যেন তারা একটা বাচ্চা নেয়ার ২ বছর পর পরবর্তী বাচ্চা নেয়।

৬)  প্রসবের পর মায়েদের অনেক টিকা দিতে হয়,ডাক্তারের পরামর্শ অনুযায়ী তা গ্রহণ করুন।

৭) যে সব মায়েদের রুবেলা হওয়ার ঝুকি আছে,বাচ্চা হওয়ার ১৪ দিনের মাঝে  এমএমআর ভ্যাকসিন তাদের নিতে হবে।

প্রসবের পরে প্রতিটি পরিবারের উচিত মায়ের দিকে ঠিকমত খেয়াল রাখা,যেন মা তার স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরে আসতে পারে।

ডক্টোরোলা ডট কম (www.doctorola.com) প্রচারিত সকল তথ্য সমসাময়িক বিজ্ঞানসম্মত উৎস থেকে সংগৃহিত এবং এসকল তথ্য কোন অবস্থাতেই সরাসরি রোগ নির্ণয় বা চিকিৎসা দেয়ার উদ্দেশ্যে প্রকাশিত নয়। জনগণের স্বাস্থ্য সচেতনতা সৃষ্টি ডক্টোরোলা ডট কমের (www.doctorola.com) লক্ষ্য।

দেশজুড়ে অভিজ্ঞ ডাক্তারদের খোঁজ পেতে ও অ্যাপয়েন্টমেন্ট নিতে ভিজিট করুন www.doctorola.com অথবা কল করুন 16484 নম্বরে।

1 Comment

  1. Bikash says:

    This is very helpful post thanks