Not Available Date for this Advertisement

ঘুমের মধ্যে হাঁটা / স্লিপ ওয়াকিং

Blog pic-71
অনেকেই টিভির পর্দায় দেখে থাকবেন যে ঘুমের মাঝে ও মানুষ হাঁটে, ব্যাপারটা মজার মনে হলে ও এটা কিন্তু মজার না বাস্তব জীবনে কারন বাস্তব জীবনে ঘুমের মধ্যে কেউ হেঁটে থাকলে তিনিই বুঝবেন প্রতিনিয়ত কত সমস্যায় পড়তে হয়, কারন ঘুমের মধ্যে উনি কি করছেন না করছেন তা উনি না জানলে ও অন্যরা ঠিকই এর কবলে পড়ছে। এটি এক ধরনের প্যারাসোমনিয়া। ঘুমের মধ্যে হাঁটাকে সোমনমবুলিজম’ বা নকচামবুলিজম বলা হয়।

কাদের এটি বেশি হয়ঃ
১) বড়দের থেকে ছোটদের মাঝে দেখা দেয় এটি বেশি। কিশোরদের মাঝে ও এটার কিছুটা প্রবনতা দেখা যায়
২) বংশে বাবা-মা এর থাকলে সন্তানের হতে পারে
৩) ওএসএ নামক চোখের রোগ যদি কারো থেকে থাকে তাদের হতে পারে
৪) মাথায় কোন আঘাত পেলে

কিভাবে ঘুমের মধ্যে মানুষ হাঁটেঃ
ঘুমের সাধারণত ৪ টি স্তর আছে। প্রথম তিনটি স্তর সাধারন স্তর, এই৩ স্তরের কোন বিশেষ ভূমিকা নেই কিন্তু শেষ স্তর খুব গুরুত্বপূর্ণ। শেষের স্তরে এক ধরনের চলাচল দেখা দেয়, একে বলা হয় র্যাপিড-আই মুভমেন্ট। আর এই সময়ই মানুষ দেখে নানা রকম স্বপ্ন, এই সময় মানুষ এক ধরনের ঘোরের মধ্যে থাকে, এবং সে তখন কি করে না করে তা সে নিজেও জানে না। এই স্তরে মানুষের ঘুমও হয় প্রকট। আর তাই এই স্তরে যখন র্যাপিড-আই মুভমেন্ট হয় তখন মানুষ নিজের অজান্তেই হাঁটে।

কেন হয়ঃ
এটার কোন নির্দিষ্ট কারন নেই। কিন্তু গবেষণা করে দেখা গেছে
১) কেউ যদি অতিরিক্ত পরিশ্রম করে তার এমন হতে পারে
২) ঠিকমত ঘুম না হলে ও এমন হতে পারে
৩) কোন কিছু নিয়ে অতিরিক্ত চিন্তা করলে
৪) ঘুমের সময়েশ্বাস-প্রশ্বাসে কোন কষ্ট হলে হঠাৎ করে এমন হতে পারে

করনীয়ঃ
১) আপনি যদি বুঝে থাকেন আপনার পাশের মানুষটি স্লিপওয়াকিং করছে তবে তাকে কোন ধরনের বিরক্ত করবেন না, সে যা করতে চায় তাকে তা করতে দিবেন।
২) বুঝিয়ে ঘুমানোর চেষ্টা করতে হবে।
৩) এই ধরনের ব্যক্তির আশেপাশে যেন কোন ধারলো যন্ত্রপাতি না থাকে সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে।
৪) এদের একা ঘুমাতে দিবেন না কারন একা থাকলে এরা নিজের অজান্তেই হাটতে হাটতে বের হয়ে যেতে পারে বাসা থেকে।
৫) খেয়াল রাখবেন যেন এই ধরনেরব্যক্তি প্রতিদিন পর্যাপ্ত পরিমান ঘুমায়।
৬) ঘুমের মাঝে যদি এই ধরনের ব্যক্তি অদ্ভুত সব আচরন করতে থাকে তবে তাকে সাবধানে জাগিয়ে দিবেন।
৭) ঘরের দরজায় একটি এলার্ম ঘড়ি লাগিয়ে দিবেন যেন এরা দরজা দিয়ে বের হতে গেলে এলার্ম বেজে উঠে এবং আপনারা সচেতন হতে পারেন

ডক্টোরোলা ডট কম (www.doctorola.com) প্রচারিত সকল তথ্য সমসাময়িক বিজ্ঞানসম্মত উৎস থেকে সংগৃহিত এবং এসকল তথ্য কোন অবস্থাতেই সরাসরি রোগ নির্ণয় বা চিকিৎসা দেয়ার উদ্দেশ্যে প্রকাশিত নয়। জনগণের স্বাস্থ্য সচেতনতা সৃষ্টি ডক্টোরোলা ডট কমের (www.doctorola.com) লক্ষ্য।
 
দেশজুড়ে অভিজ্ঞ ডাক্তারদের খোঁজ পেতে ও অ্যাপয়েন্টমেন্ট নিতে ভিজিট করুন www.doctorola.com অথবা কল করুন 16484 নম্বরে।

Comments are closed.