উচ্চরক্তচাপ

Blog pic-64

উচ্চরক্তচাপ যাকে কিনা ইংরেজিতে বলা হয় হাইপারটেনশন। স্বাভাবিক রক্তচাপের থেকে বেশি রক্তচাপ দেখা দিলে তাকে আমরা উচ্চরক্তচাপ বলি। প্রত্যেকের শরীরের একটা নির্দিষ্ট রক্তচাপের পরিমাণ আছে, কিন্তু কোন কারণে যদি এই রক্তচাপ নির্দিষ্ট পরিমাণের থেকে বেড়ে যায় প্রতিনিয়ত তবে তাকে আমরা উচ্চরক্তচাপ হিসেবে বিবেচনা করি।

সাধারণত মানুষের রক্তচাপ ১২০/৮০ মিলিমিটার অব মারকারি, তবু ও একটা নির্দিষ্ট রেঞ্জ হিসেবে এই রক্তচাপ ১৩৯/৯০ মিলিমিটার অব মারকারি হতে পারে, কিন্তু এই রেঞ্জ অতিক্রম করে যদি রক্তচাপ আরো বেশি হয় প্রতিনিয়ত তাহলে তা অবশ্যই উচচরক্তচাপের লক্ষণ।

কিভাবে বুঝবেন আপনার উচ্চরক্তচাপ হয়েছেঃ
১) মাথা ঘোরায়
২) ঘাড় ফুলে যায় ব্যথায়
৩) চোখ অনেকটা ঝাপসা হয়ে আসে মাথা ঘুরানোর কারণে
৪) অনেক সময় বমি হয়
৫) টানা তিনদিন রক্তচাপ মাপার পর যদি নরমালের থেকে বেশি থাকে সেই টানা তিনদিন

সত্যি বলতে অনেক সময় এটি বুঝা যায় না যে কেউ উচ্চরক্তচাপের রোগী আর তাই এই উচ্চরক্তচাপকে ‘’নীরব ঘাতক’’ বলা হয়ে থাকে।

কেন হয় উচ্চরক্তচাপঃ
১) কোন কিছু নিয়ে অনেক বেশি টেনশন করলে
২) বেশি লবণ খেলে
৩) বংশে কারো থাকলে সেক্ষেত্রে হতে পারে
৪) মোটা মানুষের হয়
৫) যারা মদ্যপান করে তাদের হয়
৬) ধূমপায়ীদের হয়
৭) ডায়াবেটিস রোগীদের হতে পারে
৮) অতিরিক্ত ভয়ের কারণে ও হতে পারে
৯) অস্বাস্থ্যকর খাবার খেলে

কিছু রোগের কারণেও উচ্চরক্তচাপ হয়ে থাকেঃ
১) কিডনীতে কোন সমস্যা থাকলে হতে পারে
২) গর্ভবতীদের ক্ষেত্রে এ্যাকলাম্পসিয়া ও প্রিএ্যাকলাম্পসিয়া হলে হতে পারে
৩) অনেকদিন ধরে জন্মনিয়ন্ত্রণ পিল খেলে

কি কি হতে পারে উচ্চরক্তচাপ কারণেঃ
১) স্ট্রোক
২) হার্টের যে কোন অসুখ
৩) কিডনির সমস্যা
৪) চোখে যে কোন সমস্যা দেখা দিতে পারে
৫) গর্ভবতীদের ক্ষেত্রে অতিরিক্ত বমি দেখা দেয়,মাথা ব্যথা হয়,প্রসাব কম হয় ইত্যাদি।

চিকিৎসাঃ
১) যাদের উচ্চরক্তচাপ আছে তাদের খাবারের সাথে অতিরিক্ত লবণ না খাওয়া
২) মোটা যেসব মানুষের উচ্চরক্তচাপ আছে তাদের নিয়মিত ব্যায়াম করা এবং খাওয়া নিয়ন্ত্রণে আনতে হবে
৩) চর্বি জাতীয় খাবার কম খাওয়া। বিশেষ করে কলিজা, মগজ, ডিম কম খাওয়া। খাবারে তেল হিসেবে সয়াবিন, সূর্যমুখী তেল ব্যবহার করা
৪) সুজি জাতীয় খাবার খেতে পারে।
৫) মদ্যপান পরিহার করা।
৬) যথাসম্ভব চিন্তা কম করা
৭) নিয়মিত ব্যায়াম করা
৮) ডায়াবেটিসের রোগীদের অবশ্যই সবকিছু নিয়মমাফিক করতে হবে
৯) পর্যাপ্ত পরিমাণ বিশ্রাম নেয়া
১০) প্রেশারের কোন ওষুধ খেতে হলে অবশ্যই ডাক্তারের পরামর্শ অনুযায়ী
১১) গর্ভবতীদের ক্ষেত্রে প্রিএক্লেম্পসিয়া হলে রক্তচাপ অনেক বেড়ে যায় তাই এমন দেখা দিলে অবশ্যই সাথে সাথে হাসপাতালে ভর্তি করিয়ে দিতে হবে।

ডক্টোরোলা ডট কম (www.doctorola.com) প্রচারিত সকল তথ্য সমসাময়িক বিজ্ঞানসম্মত উৎস থেকে সংগৃহিত এবং এসকল তথ্য কোন অবস্থাতেই সরাসরি রোগ নির্ণয় বা চিকিৎসা দেয়ার উদ্দেশ্যে প্রকাশিত নয়। জনগণের স্বাস্থ্য সচেতনতা সৃষ্টি ডক্টোরোলা ডট কমের (www.doctorola.com) লক্ষ্য।

দেশজুড়ে অভিজ্ঞ ডাক্তারদের খোঁজ পেতে ও অ্যাপয়েন্টমেন্ট নিতে ভিজিট করুন www.doctorola.com অথবা কল করুন 16484 নম্বরে।

Comments are closed.